ফেব্রুয়ারী / ০৩ / ২০২৩ ০৬:২২ পূর্বাহ্ন

জৈন্তা বার্তা ডেস্ক

জানুয়ারী / ২২ / ২০২৩
০৩:২০ অপরাহ্ন

আপডেট : ফেব্রুয়ারী / ০৩ / ২০২৩
০৬:২১ পূর্বাহ্ন

আখেরি মোনাজাতের মধ্যদিয়ে শেষ হলো বিশ্ব ইজতেমা, বিশ্বশান্তি কামনা



14

Shares

ঢাকার তুরাগের আশপাশে যত দূর চোখ যায় শুধু মানুষ আর মানুষ। মহাসড়ক, খোলা জায়গা, ঘরবাড়ির ছাদ, পাড়ে ভিড়িয়ে রাখা নৌকা, থমকে থাকা বাস, ট্রাক বা পিকআপ ভ্যানে হাজারো মানুষ। কেউ বসে, কেউবা দাঁড়িয়ে তুলেছেন প্রার্থনার দুই হাত। দূর থেকে মাইকে ভেসে আসছে মোনাজাতের শব্দ। কারও চোখ বন্ধ, কারও দৃষ্টি সুদূরে প্রসারিত, কারও চোখ অশ্রুভেজা। দুই ঠোঁটের ফাঁক গলে শুধু বেরিয়ে আসছিল ‘আমিন, আমিন’ ধ্বনি। হাজারো মুসল্লির সমবেত সেই ধ্বনিতে মুখরিত হয়ে উঠল চারপাশ।

গাজীপুরের টঙ্গীর তুরাগতীরে আজ রোববার বেলা পৌনে একটায় আখেরি মোনাজাতের মাধ্যমে শেষ হলো এবারের বিশ্ব ইজতেমা। 

মহান আল্লাহর সন্তুষ্টি লাভের আশায় টঙ্গীর তুরাগতীর ও আশপাশের এলাকায় ঢল নামে হাজারো মুসল্লির। জীবনের সব পাপ, গুনাহ থেকে মুক্তির আশায় মহান সৃষ্টিকর্তার দরবারে দু-হাত তুলে অনুনয়-বিনয় করছিলেন তাঁরা। বহু মানুষের অংশগ্রহণে ইহলোকের মঙ্গল, পরকালের ক্ষমা এবং দেশের কল্যাণ, মুসলিম উম্মার ঐক্য ও বিশ্বশান্তি কামনা করা হয়।

পূর্বঘোষণা অনুযায়ী দুপুর ১২টায় মোনাজাত শুরু হওয়ার কথা থাকলেও শেষ পর্যন্ত তা শুরু হয় ১২টা ১৬ মিনিটে। শেষ হয় ১২টা ৪৬ মিনিটে। মোনাজাত করেন মাওলানা সাদ কান্ধলভীর বড় ছেলে মাওলানা ইউসুফ বিন সাদ কান্ধলভী। প্রায় ৩০ মিনিটের মোনাজাতে থমকে গিয়েছিল পুরো টঙ্গীর তুরাগতীর ও আশপাশের এলাকা। যে যেখানে ছিলেন, সেখানে থেকেই যোগ হন মোনাজাতে।

ইজতেমা মাঠের বিদেশি কামরার সামনে বসে আছেন কয়েকজন বিদেশি মুসল্লি। শুক্রবার দুপুরে

দ্বিতীয় পর্বের ইজতেমার শেষ দিনে আজ সকালে ভারতের মো. মুরসালীনের বয়ানের মধ্য দিয়ে কার্যক্রম শুরু হয়। এরপর সকাল সাড়ে ৯টার দিকে হেদায়েতি বয়ান করেন মাওলানা ইউসুফ বিন সাদ কান্ধলভী। বয়ান শেষে দুপুর ১২টা ১৬ মিনিটে তিনিই মোনাজাত শুরু করেন।

জৈন্তা বার্তা ডেস্ক

জানুয়ারী / ২২ / ২০২৩
০৩:২০ অপরাহ্ন

আপডেট : ফেব্রুয়ারী / ০৩ / ২০২৩
০৬:২১ পূর্বাহ্ন

জাতীয়