ফেব্রুয়ারী / ০৩ / ২০২৩ ০৫:৩৭ পূর্বাহ্ন

জৈন্তাবার্তা ডেস্ক:

জানুয়ারী / ২১ / ২০২৩
০৪:০৩ অপরাহ্ন

আপডেট : ফেব্রুয়ারী / ০৩ / ২০২৩
০৫:৩৭ পূর্বাহ্ন

বিনামূল্যের স্কুলড্রেস ও উপবৃত্তির নামে টাকা দাবির অভিযোগ



6

Shares

মৌলভীবাজারের বড়লেখায় প্রাথমিক ও গণশিক্ষা মন্ত্রণালয়ের অধীনে আউট অব স্কুল চিলড্রেন এডুকেশন প্রোগ্রামের (উপানুষ্ঠানিক শিক্ষা কার্যক্রম) উপজেলা কো-অর্ডিনেটর জয়নাল আবেদীনের বিরুদ্ধে দরিদ্র শিক্ষার্থীদের কাছ থেকে বিনামূল্যে বিতরণের স্কুলড্রেস প্রদানে ও উপবৃত্তির তালিকায় নাম অর্ন্তভুক্তির জন্য টাকা দাবির অভিযোগ পাওয়া গেছে। 

এব্যাপারে মুর্শিবাদকুরা উপানুষ্ঠানিক প্রাথমিক বিদ্যালয়ের শিক্ষার্থীরা ও কয়েকজন অভিভাবক বৃহস্পতিবার (১৯ জানুয়ারি) ইউএনও’র কাছে মৌখিকভাবে অভিযোগ করেছেন।

ইউএনও’র নিকট অভিযোগ দিতে আসা ওই প্রোগ্রামের মুর্শিবাদকুরা উপানুষ্ঠানিক প্রাথমিক বিদ্যালয়ের তৃতীয় শ্রেণির শিক্ষার্থী তানিয়া বেগম, ঝুমন আহমদ, মাশরাফি আহমদ শান্তা বিশ্বাস, শিক্ষার্থী অভিভাবক নাসিমা বেগম, সুলতানা বেগম, শিক্ষিকা শিল্পী বিশ্বাস প্রমুখ অভিযোগ করে বলেন, নতুন বছরের প্রথম মাস প্রায় অতিবাহিত হওয়ার পথে। এখনও শিক্ষার্থীরা নতুন বই পায়নি। বিনামূল্যের স্কুলড্রেস পাওয়ার জন্য উপজেলা কো-অর্ডিনেটর জয়নাল আবেদীন স্কুলে গিয়ে বলেন জনপ্রতি ৩০০ টাকা করে না দিলে কাউকে স্কুলড্রেস দেওয়া হবে না। এছাড়া উপবৃত্তির তালিকায় নাম উঠাতেও ৫০০ টাকা করে দিতে হবে। আমরা হতদরিদ্র মানুষ, এত টাকা পাবো কোথায়। এমনিতেই লেখাপড়া বন্ধ ছিল। ওই স্কুল চালু হওয়ায় পুনরায় ভর্তি হই, পড়াশুনা শুরু করি। স্কুলড্রেস প্রদানে ও উপবৃত্তির তালিকায় নাম অর্ন্তভুক্ত করতে টাকা চাওয়ায় আমরা ইউএনও স্যারের কাছে বিচার দিতে এসেছি।

জানা গেছে, আউট অব স্কুল চিলড্রেন এডুকেশন প্রোগ্রাম (পিইডিপি-৪) সাব-কম্পোনেট-২.৫ এর আওতায় প্রাথমিকের ঝরেপড়া রোধে বড়লেখায় ৭০টি উপানুষ্ঠানিক প্রাথমিক বিদ্যালয় খোলা হয়েছে। উপানুষ্ঠানিক শিক্ষা কার্যক্রম বাস্তবায়ন করছে ইউনাটেড এফর্টস ফর রুরাল ডেভলাপমেন্ট নামক একটি এনজিও সংস্থা। মোট ৭০টি কেন্দ্রের শিক্ষার্থী সংখ্যা ২ হাজার ১৪ জন। প্রতিটি কেন্দ্রে একজন করে শিক্ষক পাঠদানে নিয়োজিত রয়েছেন।

এ ব্যাপারে এই প্রোগ্রামের উপজেলা কো-অর্ডিনেটর জয়নাল আবেদীন বলেন, স্কুলড্রেস বিতরণ ও উপবৃত্তির তালিকায় নাম অর্ন্তভুক্তির জন্য তিনি কোনো টাকা চাননি। অন্য কারণে এই স্কুলের শিক্ষার্থীদের স্কুলড্রেস বিতরণ বিলম্বিত হচ্ছে।

উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা সুনজিত কুমার চন্দ শুক্রবার বিকেলে বলেন, শিক্ষার্থী ও তাদের অভিভাবককে লিখিত অভিযোগ দিতে বলা হয়েছে। অভিযোগ পেলে তদন্তপূর্বক ব্যবস্থা গ্রহণ করা হবে।

জৈন্তাবার্তা ডেস্ক:

জানুয়ারী / ২১ / ২০২৩
০৪:০৩ অপরাহ্ন

আপডেট : ফেব্রুয়ারী / ০৩ / ২০২৩
০৫:৩৭ পূর্বাহ্ন

মৌলভীবাজার