ডিসেম্বর / ০১ / ২০২২ ০৯:১৫ পূর্বাহ্ন

জৈন্তাবার্তা ডেস্ক:

নভেম্বর / ২৪ / ২০২২
০২:০৩ অপরাহ্ন

আপডেট : ডিসেম্বর / ০১ / ২০২২
০৯:১৫ পূর্বাহ্ন

চা শ্রমিকেরা কেন পিছিয়ে পড়ে আছে?



9

Shares

মজুরি বাড়লেও চা শ্রমিকদের জীবনমানের সামগ্রিক উন্নয়ন হয়নি। এ জনগোষ্ঠীকে এগিয়ে নিতে প্রয়োজন সরকারি-বেসরকারি সমন্বিত উদ্যোগ।

রাজধানীর মহাখালীতে ব্র্যাক ইন সেন্টারে বুধবার সকালে এক সংলাপ অনুষ্ঠানে এ অভিমত এসেছে।

‘বাংলাদেশের চা বাগানের শ্রমিকেরা কেন পিছিয়ে পড়ে আছে?’ শিরোনামে সংলাপের আয়োজন করে এসডিজি বাস্তবায়নে নাগরিক প্ল্যাটফর্ম, বাংলাদেশ। এতে অংশ নেন চা শ্রমিক, বাগানমালিকসহ অর্থনৈতিক নীতি নির্ধারকরা।

সংলাপে জাতিসংঘ উন্নয়ন কর্মসূচির (ইউএনডিপি) এদেশীয় আবাসিক সমন্বয়ক গ্যান লুইস বলেন, ‘চা শ্রমিকরা প্রতিনিয়ত বৈষম্যের শিকার হচ্ছেন। পুষ্টি, শিক্ষা, স্বাস্থ্য ও কর্মসংস্থানের ক্ষেত্রে চা শ্রমিকরা পিছিয়ে আছেন। এ খাতে সরকারের টেকসই পরিকল্পনায় শ্রমিকের জীবন যেমন উন্নত হবে তেমনি এই শিল্পেরও প্রসার হবে।’

চা কন্যা নারী সংগঠনের সভাপতি খায়রুন আখতার বলেন, ‘৩০০ টাকা মজুরির দাবিতে আমরা আন্দোলনে নেমেছিলাম। চা শ্রমিকদের বর্তমান মজুরি দিনে ১৭০ টাকা। জিনিসপত্রের যত দাম তাতে এ টাকাতে কিছুই হয় না।’

মৌলভীবাজার কমরেগঞ্জের মাধবপুর ইউনিয়নের নারী সদস্য মালতি ব্যানার্জি বলেন, ‘বাগানে চা শ্রমিকের যেসব সুবিধা পাওয়ার কথা তা তারা পাচ্ছেন না। চা শ্রমিকদের বঞ্চনার কথা শোনার কেউ নেই।’

প্রধান অতিথি জনপ্রশাসন মন্ত্রণালয় সম্পর্কিত সংসদীয় স্থায়ী কমিটির সদস্য মো. আবদুস শহীদ বলেন, ‘সমাজের কাউকে পিছিয়ে রাখা যাবে না, এটাই সরকারের লক্ষ্য। চা শিল্পে আধুনিকায়ন প্রয়োজন। সঙ্গে চা শ্রমিকদের জীবন মান উন্নয়নে আরও নজর দেয়া প্রয়োজন।’

সংলাপ সঞ্চালনা করেন সেন্টার ফর পলিসি ডায়লগের (সিপিডি) বিশেষ ফেলো দেবপ্রিয় ভট্টাচার্য। তিনি বলেন, ‘চা বাগানে বহুমাত্রিক দারিদ্রসীমা, পুস্টিহীনতা, মাতৃমৃত্যুর হার, বাল্যবিবাহ বেশি। অন্যদিকে শিক্ষার হার, আয়ুষ্কাল ও চিকিৎসাসেবা কম। চা শ্রমিকদের জীবনমানে অনেকটা অগ্রগতি হলেও তারা জাতীয় গড় থেকে পিছিয়ে আছেন। দেশের নীতি পর্যালোচনার ক্ষেত্রে চা শ্রমিকরা ততটা মনোযোগ পাচ্ছেন না।’

সিপিডির আরেক বিশেষ ফেলো অধ্যাপত মোস্তাফিজুর রহমান বলেন, ‘চা শ্রমিকদের জীবনমান উন্নয়ন করার দায়িত্ব সরকারের। এই জনগোষ্ঠীকে মূলধারায় আনতে হবে।’

চা বাগানের শ্রমিকদের যেসব সুবিধা পাওয়ার কথা, তা দেয়া হচ্ছে না বলে স্বীকার করেন ইস্পাহানি গ্রুপ অব টি এস্টেটের চিফ অপারেটিং অফিসার গোলাম মোস্তফা।

তিনি বলেন, ‘চা বাগানে শ্রমিকদের অনেক সুবিধা দেয়া হয়। তবে আরও প্রয়োজন। মূলত চা বাগান টিকে আছে মালিক-শ্রমিকের প্রচেষ্টায়।’

স্যোশালিস্ট লেবার ফ্রন্টের সভাপতি রাজেকুজ্জামান রতন বলেন, ‘দেশে চায়ের উৎপাদন বেড়েছে। বাজারেও চায়ের দাম বেশি। কিন্তু চা শ্রমিকদের জীবনমান বদলায়নি, চা শ্রমিকদের প্রকৃত মজুরি বাড়েনি।’

সংলাপে অংশ নেন বাংলাদেশ চা বোর্ডের সদস্য মোহাম্মদ নুরুল্লাহ নূরী, নাগরিক উদ্যোগের প্রধান নির্বাহী জাকির হোসেন, বাংলাদেশ টি এস্টেট স্টাফ অ্যাসোসিয়েশনের সাধারণ সম্পাদক মো. হাবিবুর রহমানসহ চা শিল্পে জড়িত অনেকে।

জৈন্তাবার্তা ডেস্ক:

নভেম্বর / ২৪ / ২০২২
০২:০৩ অপরাহ্ন

আপডেট : ডিসেম্বর / ০১ / ২০২২
০৯:১৫ পূর্বাহ্ন

জাতীয়